Sydney, Australia, Saturday, 23 September, 2017           www.banglarkantha.com          Your online magazine
For Study, Visit or Migrate to Australia please contact on +64430040490 or email at jibon67@yahoo.com
pancocon Office Professional Plus 2013 Key and Download URL will be send via Email within 8 hours. cheap office 2013 key

নিউ ইয়র্কে সরকারিভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এই প্রথম মুসলিম নাগরিকদের জন্য ঈদের ছুটি

তৈয়বুর রহমান টনি নিউইর্য়ক থেকেঃ

Buy cheap Viagra online

নিউ ইয়র্কের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এই প্রথম মুসলিম নাগরিকদের জন্য ঈদের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে ৷ গত বুধবার মেয়র বিল ডি ব্লজিও এ কথা জানান ৷ মেয়র জানিয়েছেন ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা দিন দুটিতে মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের অসুবিধার মধ্যে পড়তে হয় ৷ তারা বুঝতে পারে না ‘স্কুল না ধর্ম’ কোনটিকে গুরুত্ব দেবে৷ তবে আর কোনও সমস্যা নেই৷ দিন দুটিতে এবার থেকে সরকারি ছুটি থাকবে৷muslim-holidays-nyc-schools-at-ps-is-30-by-demetrius-freeman-mayoral-photography-office-b

গত নির্বাচনের আগে ডেমোক্রেটিক পার্টির মেয়র প্রার্থী বিল ডি ব্লজিও নির্বাচনে জয়ী হলে দুই ঈদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।এ নিয়ে ভারত-বাংলাদেশ সহ অন্যান্য দেশের মুসলিম বাসিন্দারা ব্যাপক প্রচারে যোগ দেন৷বুধবার ডি ব্লজিওর এ ঘোষণার পর নিউ ইয়র্কের স্কুল চ্যান্সেলর ক্যারম্যান ফারিনা জানান, চলতি বছর থেকেই দুই ঈদের ছুটি কার্যকর হবে৷ স্কুলের ক্যালেন্ডারেও দিন দুটি ছুটি হিসেবে উল্লিখিত থাকবে।এই ঘোষণার ফলে এখন থেকে নিউ ইয়র্কের পাবলিক স্কুলগুলিতে দুই ঈদে সাধারণ ছুটি থাকবে।

নিউ ইয়র্কে পাবলিক স্কুলগুলিতে আগে থেকে ইহুদি ও খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের উৎসবে ছুটি ছিল। নিউ ইয়র্কে মুসলিম প্রবাসীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ায় ঈদে স্কুল ছুটি রাখার দাবি জোরালো হয়ে ওঠে। প্রাক্তন মেয়র মাইকেল ব্লুমবার্গ ধর্মীয় উৎসবের নামে স্কুল বন্ধ রাখার বিরোধিতা করে আসছিলেন। নিউ ইয়র্কে মুসলমান প্রবাসীদের সামাজিক সংগঠনগুলি তাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে দুই ঈদে স্কুলে ছুটি আদায়ের দাবি জানাতে থাকে। বর্তমান ডি ব্লজিও ঈদে স্কুল ছুটির ঘোষণা দিয়ে বলেন, এই শহরের উন্নয়নে মুসলিমদের অবদানের স্বীকৃতির জন্যই ঈদের উৎসবে স্কুল ছুটি রাখা হবে।

নিউ ইয়র্ক নগরের পাবলিক স্কুলে ১০ লাখেরও বেশি শিক্ষার্থী রয়েছে। ২০০৯ সালে কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের জরিপ থেকে জানা যায়, নিউইয়র্কের পাবলিক স্কুলের ১০ শতাংশ শিক্ষার্থী মুসলিম ধর্মাবলম্বী। শহরের পাঁচটি ব্যুরোতে বসবাসরত মোট ৮০ লাখ মানুষের মধ্যে ১০ লাখ মুসলিম।
নিউ ইয়র্কের স্কুল চ্যান্সেলর ক্যারম্যান ফারিনা তার তাৎক্ষণিক বক্তব্যে জানিয়েছেন, দুই ঈদে ছুটি ঘোষণার ফলে শিক্ষার্থীরা ধর্মীয় সহনশীলতা, ভিন্ন ধর্ম ও সংস্কৃতি সম্পর্কে জানার ও শেখার অবকাশ পাবে। আরব আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক লিন্ডা সারসোর তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, এত দিন ধর্মীয় উৎসব পালন এবং শিক্ষাগ্রহণের জন্য স্কুলে যাওয়ার টানাপোড়েন থাকত ছেলেমেয়েদের। তিনি বলেন, ঈদের দিনগুলিতে ছুটি ঘোষণা আমেরিকার মুসলিমদের জন্য ঐতিহাসিক।

নিউইয়র্ক স্কুল বোর্ডে কর্মরত প্রবাসী শাহানা বেগম তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘দিনটি আমাদের জন্য খুবই আনন্দের’৷ দুই দশকের বেশি সময় নিউ ইয়র্কে থাকলেও ঈদের দিনগুলিতে স্কুল খোলা থাকার বিড়ম্বনায় থাকতে হতো। দেরিতে হলেও এই বিড়ম্বনার অবসান ঘটেছে বলে তিনি মনে করেন। কলেজ শিক্ষার্থী সাকিব চৌধুরী বলেন, ‘নিউইয়র্কের পাবলিক স্কুলে পড়ার সময় দেখেছি অন্য ধর্মের শিক্ষার্থীরা তাদের উৎসবে ছুটি পাচ্ছে। আমাদের মনটা খারাপ হয়ে যেত।’ দেরিতে হলেও মেয়র ডি ব্লজির ঘোষণার মধ্য দিয়ে নিউ ইয়র্কে মুসলমানদের বিজয় ঘটেছে বলে তিনি আনন্দ প্রকাশ করেন।

নিউ ইয়র্কে পাবলিক স্কুলে ঈদের ছুটি ঘোষণা করা হলেও ব্যক্তি মালিকানাধীন স্কুলগুলি তাদের নিজস্ব নিয়মে চলে। কোনও কোনও ব্যক্তি মালিকানাধীন স্কুল শহর কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুসরণ করে থাকে। যদিও বেশির ভাগ মুসলিম প্রবাসী ছাত্র-ছাত্রীরা নিউইয়র্কের পাবলিক স্কুলের শিক্ষার্থী।

নিউ ইয়র্কের আগে নিউজার্সি, ম্যাসাচুসেটস, ভারমন্ট সহ মুসলিম-অধ্যুষিত নগরগুলিতে ঈদ উপলক্ষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি চালু করা হয়। সেই তালিকায় নিউ ইয়র্কও যুক্ত হলো।

Shuvo Noboborsho

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য