Sydney, Australia, Saturday, 23 September, 2017           www.banglarkantha.com          Your online magazine
For Study, Visit or Migrate to Australia please contact on +64430040490 or email at jibon67@yahoo.com
pancocon Office Professional Plus 2013 Key and Download URL will be send via Email within 8 hours. cheap office 2013 key

নিউইয়র্কে জেল পলাতক একজন নিহত, অপরজন কয়েদি ডেভিট সুইট আহত অবস্থায় গ্রেফতার

 

তৈয়বুর রহমান টনি নিউইয়র্কঃ

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের কারাগার থেকে পালিয়ে যাওয়া খুনের দায়ে দণ্ডিত দুই কয়েদির একজন নিহত ও অপরজন গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছে। এদের একজন ডেভিড সুয়েট রোববার গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পুলিশের হাতে গ্রেফতার ও রিচার্ড ম্যাট শুক্রবার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে নিহত হয়।
গত ৬ জুন নিউইয়র্কের দানেমোরা কারাগার থেকে পালিয়ে যায় একাধিক খুনের দায়ে দণ্ডিত অপরাধী রিচার্ড ও ডেভিড। কানাডা সীমান্তের কাছাকাছি নিউইয়র্কের উপশহর মেলোনে গুলিবিদ্ধ হয়ে পুলিশের কাছে ধরা পড়েন ডেভিড। গ্রেফতারের পর তাকে কাছের হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। তার অবস্থা স্থিতিশীল।
অন্যদিকে, শুক্রবার নিউইয়র্কের উপশহর মেলোনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে জেল পালানো রিচার্ড ম্যাটের মৃত্যু হয়।

Buy cheap Viagra online

David-Sweat_NY

শৌখিন শিকারিদের প্রিয় এলাকা ঘন বন-জঙ্গল ঘেরা মেলোনে এক শিকারির গাড়িতে জঙ্গল থেকে বন্দুকের গুলি লাগে। তিনি পুলিশকে ফোন দিলে দ্রুত অভিযান শুরু হয় জঙ্গল ঘিরে। গভীর জঙ্গলে শিকারিদের জন্য নির্মিত অস্থায়ী স্থাপনায় লুকিয়ে থাকা রিচার্ডকে ঘেরাও করে ফেলে যৌথ বাহিনী। রিচার্ড গুলি করে শিকারির গাড়িটি দখলে নিতে চেয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। হাত ওপরে উঠানোর নির্দেশ অমান্য করলে অভিযানে অংশ নেওয়া সদস্যদের উপর্যুপরি গুলিতে ঘটনাস্থলেই রিচার্ডের মৃত্যু হয়।
নিউইয়র্কের গভর্নর অ্যান্ড্রু কোমো দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছান। গতকাল রাতে সংবাদ সম্মেলন করে তিনি তল্লাশি অভিযানের সময় গুলিতে রিচার্ডের মৃত্যুর কথা জানান। পালিয়ে যাওয়া অপর পলাতক ডেভিড আশপাশেই আছে বলে ধারণা থেকে গভীর ওই জঙ্গলে তল্লাশি অভিযান বাড়ানো হয়।
ডেভিড ধরা পরার পর নিউইয়র্কের গভর্নর অ্যান্ড্রু কোমো এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ডেভিড ধরা পড়ার মধ্য দিয়ে ভীতিকর অবস্থার অবসান ঘটেছে।David-Sweat_1NY

শুধু তা-ই নয়, ঘন বন-জঙ্গল ঘেরা মেলোনের অধিবাসীদের মধ্যেও স্বস্তি ফিরে এসেছে।
নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ওই কারাগার থেকে কয়েদি পালানোর প্রথম ঘটনা ছিল এটি। সার্বক্ষণিক পাহারায় থাকা ওই কারাগারের সেল থেকে রিচার্ড ও ডেভিডের পালিয়ে যাওয়ার কৌশল ছিল বেশ চৌকস।
কারা সেলের বাইরে থেকে তাদের চাদর মুড়ি দিয়ে ঘুমিয়ে থাকতে দেখা যায়। চাদরের নিচে পরিধেয় কাপড়ের বান্ডিল ছিল। রাতে টহলে থাকা কারারক্ষীর দৃষ্টিতে এ বিভ্রান্তি ধরা পড়েনি। ৬ জুন ভোররাতে যখন নজরে আসে রিচার্ড ও ডেভিড কারা সেলে নেই, ততক্ষণে দেরি হয়ে গেছে অনেক। সেল থেকে সুড়ঙ্গ করে সুয়ারেজ লাইন দিয়ে তাদের পালিয়ে যাওয়ার প্রমাণ পাওয়া যায়। কারা প্রাচীর থেকে প্রায় হাজার ফুট দূরে ম্যানহোলের সুড়ঙ্গ সংযোগ দিয়ে তারা পালিয়ে যান। যাওয়ার আগে দুই অপরাধী ‘হ্যাভ এ নাইস ডে’ লেখা বার্তা রেখে যায়।
রিচার্ড ও ডেভিডের পালিয়ে যাওয়ার দুই দিন পরই কারাগারের নারী কর্মী জয়েস মিচেলকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। পলাতক দুজনের সঙ্গে মিচেলের ভালো সম্পর্কের প্রমাণ পাওয়া গেছে। মিচেলের মাধ্যমেই তারা খননযন্ত্র এবং ধাতব কাটার যন্ত্র সংগ্রহ করেছিল।

Shuvo Noboborsho

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য