Sydney, Australia, Saturday, 23 September, 2017           www.banglarkantha.com          Your online magazine
For Study, Visit or Migrate to Australia please contact on +64430040490 or email at jibon67@yahoo.com
pancocon Office Professional Plus 2013 Key and Download URL will be send via Email within 8 hours. cheap office 2013 key

নিউইয়র্কসহ উত্তর আমেরিকায় যথাযোগ্য ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার ঈদুল ফিতর পালন

 

Buy cheap Viagra online

তৈয়বুর রহমান টনি নিউ ইর্য়ক থেকেঃ

নিউইয়র্ক সহ যুক্তরাষ্ট্রে যথাযোগ্য ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে উদযাপিত হয়েছে মুসলিম সম্প্রদায়ের সবচাইতে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর। স্থানীয় সময় ১৭ জুলাই শুক্রবার উত্তর আমেরিকার নিউইয়র্ক, নিউজার্সী, ওয়াশিংটন সহ বিভিন্ন স্টেটে বসবাসরত মুসলমানগন স্বপরিবারে নিকটস্থ মসজিদ ও খোলা মাঠে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করন।65

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকায় ছেলে-মেয়েদের নিয়ে ঈদ জামাতে যেতে পারায় এবারের ঈদে প্রবাসীদের মধ্যে বারতি উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। ঈদ জামায়াত গুলোতে নেমেছে প্রবাসীদের ঢল। যুক্তরাষ্ট্রে এবার অধিকাংশ ঈদ জামায়াত সকাল সাড়ে ৮ থেকে সাড়ে ১০ টার মধ্যে অনুষ্ঠিত হয়। আবহাওয়া ভাল থাকায় অধিকাংশ ঈদ জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে খোলা আকাশের নিচে।নিউ ইয়র্কে সবচেয়ে বড় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ৯টায় জ্যামাইকা হাইস্কুল খেলার মাঠে (৮৪ এভেনিউ ১৬৮ ষ্ট্রীট)। ঈদ জামাতে জ্যামাইকা স্কুল মাঠে প্রায় ১০ হাজার লোকের সমাগম ঘটেছিল। পুরো এলাকা ছিল মুসল্লিতে পরিপূর্ণ।
নিউইয়র্কে কুইন্স, ব্রুকলিন, ব্রঙ্কসের, এস্টোরিয়া, ওজনপার্ক, এবং ম্যানহাটন, লংআইল্যান্ড ও নিউ জার্সীতে বাংলাদেশী অধ্যুষিত এলাকা অলি-গলিতে নতুন পোশাক পরিহিত নতুন প্রজন্মের অভূত পূর্ব সম্মিলন ঘটে। সকাল সাড়ে ৮টায় এবং সকাল সাড়ে ৯ টায় ব্রঙ্কস বাংলাবাজার জামে মসজিদের উদ্যোগে মসজিদের পাশে খোলা মাঠে বিশাল জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাবাজার জামে মসজিদে খুতবা পাঠ করেন মসজিদের খতীব মাওলানা আবুল কাশেম এহিয়া।Eid2-Ul-fat_Tony2015

পার্কচেস্টার জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৮ টা এবং সকাল সাড়ে ৯ টায় ২টি জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়। পার্কচেস্টার জামে মসজিদে খুতবা পাঠ করেন মসজিদের খতীব মাওলানা মো: মাঈনুল ইসলাম।

জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে ঈদের নামাজের আগে সেন্টারের পক্ষ থেকে ঈদ জামাতে মুসল্লীদের উদ্দ্যশ্যে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন। সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানান জেএমসি পরিচালনা কমিটির সভাপতি ডা. মোহাম্মদ ওয়াহিদুর রহমান ও সেক্রেটারী মোহাম্মদ আকতার হোসেন, জন ল্যু, স্টেট এ্যাসেম্বলীম্যান ডেভিট ওয়েপরিন প্রমূখ। আরোও উপস্হিত ছিলেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কন্সাল জেনারেল শামীম আহসান, সাবেক এমপি ওঠিকানা গ্রুপের চেয়ারম্যানএম এম শাহীন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ, ডেমোক্রেট লীডার মুর্শেদ আলম সহ কমিউনিটির বহু খ্যতিমান ব্যাক্তিবর্গ। জেএমসি’র খতিব ও ইমাম মাওলানা মির্জা আবু জাফর বেগ প্রমুখ।Eid2Ul-fat_Tony2015
সকাল সাড়ে ৮টায় নর্থ ব্রঙ্কস জামে মসজিদের উদ্যোগে ব্রঙ্কসের ওভাল পার্কে বিশাল জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়নিউ ইয়র্কের অন্যান্য বৃহৎ জামাত যেসব স্থানে অনুষ্ঠিত হয় সেগুলো হলো,জ্যাকসন হাইটসে ব্রডওয়ে এবং ৭৩স্ট্রিটে,ব্রুকলিনে চার্চ-ম্যাকডোনাল্ড সংলগ্ন,বাংলাদেশ মুসলিম সেন্টার,এস্টোরিয়ার আল-আমিন মসজিদের উদ্যোগে ৩৬ স্ট্রিটে,ব্রুকলিন বায়তুল জান্নাহ মসজিদের উদ্যোগে অ্যাভিনিউ সি’রউপর। ব্রুকলীনে সবচেয়ে বড় ঈদজামাত অনুষ্ঠিত হয় ব্রুকলিন মুসলিম সেন্টারে।

এছাড়া নিউজার্সি, পেনসিলভেনিয়া, কানেকটিকাট, বস্টন, ওয়াশিংটন মেট্রোমিশিগান, ফ্লোরিডা, জর্জিয়া, লসএঞ্জেলেস, ফিনিক্স, টেক্সাস, মন্ট্রিয়ল, অটোয়া, হ্যামিল্টন, সাসকাচুন, ক্যালগেরী, এডমন্টন প্রভৃতি স্থান থেকেও বিপুল উৎসাহে ঈদ উদযাপনের সংবাদ পাওয়া গিয়েছে।

কর্তৃপক্ষ মসজিদ গুলোর আশ পাশে বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে। এছাড়া মুসলিম অধ্যুষিত এলাকাতে ও পুলিশী টহল বাড়ানো হয়েছে। উল্লেখ্য, এবার আমেরিকায় একই সাথে ঈদ উদযাপিত হওয়ায় বহুজাতিক এদেশে মুসলিম-আমেরিকানদের ঐক্যের ব্যাপারটি মূলধারায় নতুন করে উপস্থাপন করা ও সহজ হলো। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে সমগ্র উত্তর আমেরিকায় প্রায় সাড়ে তিন হাজার মসজিদ এবং অন্যান্য শতাধিক স্থানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। জ্যামাইকা স্কুল মাঠে ঈদের নামাজ শেষে বের হওয়ার জন্য একটি গেট থাকায় বেশ বেগ পেতে হয় মুসুল্লীদের। বের হওয়ার পথে লোকজনের ভীড়ে চাপের মুখে পরতে হয়।Eid4Ul-fat_Tony2015

সকালে ঈদের নামাজ শেষ হওয়ার সাথে সাথেই বাঙালি অধ্যুষিত পাড়ায়, এপার্টমেন্টে, বাড়িতে বাড়িতে নারী পুরুষ শিশু কিশোরদের আনন্দমুখর কলকাকলিতে সরব হয়ে উঠছে। প্রতিটি পাড়াতেই নতুন কাপড় এবং মাথায় টুপি লাগিয়ে লোকজন পরিচিতদের বাসায় যাচ্ছেন এবং ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন। মহিলারা ও ছোটছোট ছেলেমেয়েরা সর্বশেষ ডিজাইনের পোশাক পরে বন্ধু-বান্ধবী ও আত্মীয়-স্বজনের বাড়ি যাচ্ছেন।

এছাড়া প্রবাসীরা  বাংলাদেশে ফোন করে স্বজনদের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। নিউ ইয়র্ক সিটির বেশ কয়েকটি বাংলাদেশি রেস্টুরেন্ট খোলা রাখা হয়েছে ব্যাচেলরদের ঈদের তৃপ্তি মেটাতে।কর্তৃপক্ষ মসজিদ গুলোর আশ পাশে বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে। এছাড়া মুসলিম অধ্যুষিত এলাকাতেও পুলিশী টহল বাড়ানো হয়েছে।উল্লেখ্য, এবার আমেরিকায় একই সাথে ঈদ উদযাপিত হওয়ায় বহুজাতিক এদেশে মুসলিম-আমেরিকানদের ঐক্যের ব্যাপারটি মূলধারায় নতুন করে উপস্থাপন করা ও সহজ হলো।Eid3Ul-fat_Tony2015

এ বছর উত্তর আমেরিকায় একই দিনে ঈদ উদযাপিত হওয়ায় মুসলমানদের সংখ্যা চোখে লেগেছে। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে সমগ্র উত্তর আমেরিকায় প্রায় সাড়ে তিন হাজার মসজিদ এবং অন্যান্য শতাধিক স্থানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

 

 

Shuvo Noboborsho

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য